এই দুর্দিনে কৃষকের ধান কেটে দিচ্ছে ছাত্রলীগ, আরো অন্যান্য সেচ্ছাসেবীরা।


করোনার কারণে পুরো বাংলাদেশের কৃষকের পড়েছে বিপাকে। লকডাউনের কারণে বাংলাদেশের সকল হাওড় এলাকার ধান কাটতে না পাড়ার দুশ্চিন্তায় ছিলো কৃষক সমাজ। ধান কাটার জন্যও প্রয়োজন অনেক শ্রমিক, আর এই লকডাউনের সময়ে শ্রমিক সংকটে পড়েছিলো তারা। যারা শ্রমিক পেয়েছে, তাদের নূন্যতম মজুরীও দেওয়ার সামর্থ্য হচ্ছে না কৃষকদের। কারণ প্রায় এক মাস ধরেই বাংলাদেশে সবাই কর্মহীন, অভাবে রয়েছে।

এদিকে সবচেয়ে প্রশংসনীয় কাজ করেছে বাংলাদেশের ছাত্রলীগের নেতারা। বাংলাদেশের হাওড় অঞ্চল যেমন ময়মনসিংহ,  নেত্রকোনা,  ভোলা, কিশোরগঞ্জ এমন অঞ্চলের কৃষকদের জমির ধান কাটার দায়িত্ব নিয়েছে স্থানীয় ছাত্রলীগরা। কিছুদিন আগে প্রথমে কিছু ইউনিভার্সিটির ছাত্ররা এই মহৎ কাজে অংশ নেয়৷ কৃষকের ধান কেটে দিয়ে তাদের কষ্ট উপলব্ধি করেছে, তাদের অর্থ বাঁচিয়ে দিয়েছে অনেক। তারপর প্রায় প্রতি জেলায় জেলায় সমস্ত নেতারা মিলে তাদের অঞ্চলের কৃষকদের ধান কেটে দেয়। 

বাংলাদেশের গাজীপুর, নওগা, নরসিংদী ইত্যাদি আরো অনেক জায়গায় কৃষক লীগ, ছাত্রলীগ, সেচ্চাসেবীরা ধান ক্ষেতে গিয়ে সেচ্ছায় এসব মহৎ কাজ করে দেয় বিনা পারিশ্রমিকে। বাংলাদেশ সরকার থেকেই এই রকম ঘোষণা আসে যে, সব নেতারা যেনো তাদের অঞ্চলের কৃষকের ধান কাটার দায়িত্ব নেয়।

 বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ খানের ছেলেও অনেক কর্মী নিয়ে কিশোরগঞ্জের প্রায় অনেক জমির ধান কেটে দেয়। এদিকে কৃষিমন্ত্রী বলছে বাংলাদেশের হাওড় অঞ্চলের প্রায় ৪৪% ধান কাটার জমির কাজ শেষ হয়েছে। এভাবেই এগিয়ে যাক বাংলাদেশ।

এমন আপডেট, গুরুত্বপূর্ণ নিউজ পেতে অনলাইন পত্রিকার পাশে থাকুন। বেশি বেশি লাইক, কমেন্ট,  শেয়ার করুন।ধন্যবাদ।

লেখাঃ নূরে আজম খান

কোন মন্তব্য নেই

Write your comment here........

Blogger দ্বারা পরিচালিত.